1. admin@dhakareport.com : Dhakareport.com :
সুইজারল্যান্ডের লেক থুনের স্বর্গরাজ্য 🇧🇩  - Dhaka Report
শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৭:৫৯ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
বাংলাদেশিদের কাছে ইটের জবাবে পাথর খেয়ে পিছু হটেছে ভারতীয়রা! সুয়ারেজের সাথে চুক্তির ঘোষণা দিল এ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ অর্থের অভাবে গৃহকর্মী রাখতে পারছেন না ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী! ১০০ প্রভাবশালীর একজন গাম্বিয়ার সেই বিচারমন্ত্রী ভারতসহ তিন দেশের নাগরিকদের সৌদি প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা সৌদি আরব যেতে প্রবাসীদের লাগবে স্মার্ট ফোন চট্টগ্রাম বন্দরে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে জীর্ণ ৩ কন্টেইনার, যেকোন মুহূর্তে বড় দুর্ঘটনা! স্বর্ণের দাম ভরিতে ২ হাজার ৪৪৯ টাকা কমলো,আজ থেকে কার্যকর বাংলাদেশী প্রবাসীদের ভিসা ও আকামার মেয়াদ বাড়াতে সম্মত হয়েছে সৌদি আরব : পররাষ্ট্রমন্ত্রী নাটোরের সিংড়ায় হঠাৎ ঘূর্ণিঝড়ে বিধ্বস্ত ৩০ টি ঘরবাড়ি পবিত্র ওমরাহ চালু ৪ অক্টোবর

সুইজারল্যান্ডের লেক থুনের স্বর্গরাজ্য 🇧🇩 

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৯ মে, ২০২০
  • ২৫৭ বার
পৃথিবীর বুকে এমন কিছু সৌন্দর্য দেখেছি যে সৌন্দর্য থেকে চোখ ফেরাতে পারিনি ওই মুহূর্তে। এখনো যখন স্মৃতির দিকে ফিরে তাকাই তখন খুঁজে পাই এমন সব টুকরো স্মৃতি- যেখানে মিশে আছে অপূর্ব পাহাড়, মেঘ আর লেকের ভেতর আমার ভেসে বেড়ানোর গল্প।

একদিন খুব ভোরে পাহাড়ের কোল ঘেঁষে সাদা সাদা মেঘের ভেলার ভেতর এক স্বর্গ রচনা করতে করতে বেরিয়ে পড়লাম সুইজারল্যান্ডের ইন্টারলেকেন থেকে লেক থুন আবিষ্কারের উদ্দেশ্যে।

সেদিন খুব ভোরে ঘুম থেকে উঠেছিলাম। চোখে ছিল আমার মেঘের কনার স্পর্শ, ঠোঁটের কোণে ছিলো আমার শিশিরের ভেজা হাসি। তারপর ভোরের এক চিলতে রোদ যখন নেমে এসেছিল এমন অপূর্ব স্নিগ্ধ একটি লেকের উপর, দু’পাশের ঘন সবুজ পাহাড়ের ভ্যালি তখন আমার ভেসে যাওয়া তরী’কে ধীরে ধীরে আঁকাবাঁকা পথ ধরে নিয়ে যেতে থাকলো দূর থেকে দূরের অচেনা বৈচিত্রে। সাথে ছিলেন আমার মা।

লেকটি অভিযাত্রার প্রথমদিকে সকালে মেঘের ভেতর লেকটির রং একরকম দেখতে পেলাম, যখন রোদ উঠতে শুরু করলো তখন পরিবর্তিত হতে থাকলো লেকের রং।

জীবনের অভিনাশী ইচ্ছেগুলো যখন চোখের সামনে এভাবেই দেখতে শুরু করেছিলাম তখন আর আমাকে থামতে হয়নি। আমার ইচ্ছে আর স্বপ্ন এক করে আমি চলছি তো চলছি। চোখ মেলেই যখন আমি এমন অপূর্ব সুন্দর্য আবিষ্কার করতে শুরু করেছিলাম- অচেনা পথ গুলোকে আমি আপন ভেবে চিনে নিয়েছি এভাবেই।

আমি তখন ছোট ছোট উপকূল ছেড়ে মহাসাগর আবিষ্কার করার জন্য বেরিয়ে পড়েছিলাম। ঘরে বসে কল্পনার চেয়েও এই পৃথিবী যে কত সুন্দর তা আমি দেখেছি।

মা আর আমি তখন সুইজারল্যান্ডে ব্যাকপ্যাক নিয়ে ২৮ দিনের সফরে বের হয়েছিলাম ২০১২ সালে। সুইজারল্যান্ডটাকে তন্নতন্ন করে ঘুরে দেখাই ছিল আমাদের একমাত্র ইচ্ছে। পাহাড়ের বাঁকে অপূর্ব লেক থুন, লেক লুজান, সুইস আল্পসের কাছাকাছি ছোট ছোট গ্রাম গুলো- লাউটার বুনেন, উনগেন, ক্লাইনেসেডিংএ বিভিন্ন লোকেশনে একেকদিন একেক দিকে আমরা বেরিয়ে পড়তাম। খুব ভোরে অভিযাত্রা শেষে সন্ধ্যার দিকে আবার আমরা ইন্টারলেকেন- এ আমাদের মেঘ পাহাড়ি নীড়ে ফিরে আসতাম।

|এই অপূর্ব দৃশ্যের মাঝে আমার ছবিগুলো তুলেছেন আমার মা | 💖👭

২০১২ সেপ্টেম্বর’ সুইজারল্যান্ডের লেক থুন অভিযাত্রার ডায়েরি থেকে 🇧🇩|

লেখক: নাজমুন নাহার বাংলাদেশের পতাকাবাহী প্রথম বিশ্বজয়ী পরিব্রাজক।

Please Share This Post in Your Social Media

এ জাতীয় আরো সংবাদ
Shares