1. admin@dhakareport.com : Dhakareport.com :
বিয়ের স্বপ্ন কুলখানিতেই সমাপ্তি - Dhaka Report
শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ১২:১৭ পূর্বাহ্ন

বিয়ের স্বপ্ন কুলখানিতেই সমাপ্তি

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২ নভেম্বর, ২০২০
  • ১৪৫ বার

আরিফ সবুজ নোয়াখালী – দুদিন পরই বিয়ের প্রস্তুতি। মনে আনন্দের অন্ত নেই। রাতে পরিবারের সবাইকে বিয়ের ব্যপারে আগাম প্রস্তুতির কথা জানিয়েছেন। নুন আনতে পান্তা ফুরানোর সংসারে হাসি ফুটিয়ে নতুন জীবনে পা রাখার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন তিনি। একসময়ের দুঃখের গ্লানি মুছে আজকে একান্নবর্তী সংসারে আনন্দের জোয়ার বইছে। সবই ঠিক আছে, বাড়িতে দুমদামে মেহমানদারি চলছে। হাজারো মানুষ দাওয়াতে এসেছে। তবে তা বিয়ের নয় কুলখানির।

এমন বেদনাবিধুর ঘটনাটি ঘটেছে নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলার চরওয়াপদা ইউনিয়নের চরবৈশাখী গ্রামে আব্দুল কাদেরের সংসারে। আব্দুল কাদেরের তৃতীয় ছেলে মো. এরশাদের(২৬) ঘটনা এটি। একটি সড়ক দুর্ঘটনায় কেড়ে নিয়েছে পরিবারের একমাত্র ভরসার তাজা প্রাণ। এঘটনায় এ পরিবারের পাশাপাশি বাকরুদ্ধ গ্রামবাসী।

সোমবার (২নভেম্বর) সরেজমিনে গিয়ে কথা হয় আব্দুল কাদেরের সাথে। জানান, তার তৃতীয় পুত্র মো. এরাশাদের জন্য তারা কনে দেখেছেন। ছেলে বাড়ি ফিরলেই ধুমধামে বিয়ে দেবে তার। কিন্তু সে স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে গেলো। এরশাদ মুলত একটি কাভার্ড ভ্যান চালিয়ে সংসার চালাতো। গত বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) সকাল সাতটার সময় মালবাহী কাভার্ড ভ্যানটি নিয়ে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম যাওয়ার পথে জেলার সীতাকুন্ড উপজেলার ছোটকুমিরা এলাকায় নিয়ন্ত্রন হারিয়ে সড়কের বাহিরে চলে গেলে গাছের সাথে ধাক্কা খেয়ে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু বরণ করে মো. এরশাদ । এসময় কাভার্ডভ্যান গাড়িতে থাকা সহকারী (ড্রাইবার) মো. ইকবাল হোসেন প্রাণে বেঁচে যান।

ইকবাল জানান, নিহত এরশাদ হোসেন তন্দ্রা জনিত কারনে সম্ভবত নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে হোমল্যান্ড এক্সপ্রেসের গার্মেন্টস সামগ্রী নিয়ে রাস্তার পাশে গাছের সাথে ধাক্কা লাগে। এতে গাছের সাথে চাপা লেগে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। বৃহস্পতিবার রাত ৮টার সময় নিহতের এলাকায় তাকে দাপন করা হয়।

এমন পরিস্থিতিতে এরশাদের মা সন্তানকে হারিয়ে বাকরুদ্ধ প্রায়। নিজের একমাত্র কর্মক্ষম সন্তান দুনিয়া থেকে চিরতরে বিদায় নিয়ে গেছে তিনি বিশ্বাসই করতে পারেন না। তার সন্তান তার কোলে ফিরবে ভাবনাতেই পথ চেয়ে অশ্রুশীক্ত হয়ে নির্বাক তাকিয়ে রয়েছেন তিনি।

নিহতের ছোটভাই মো. রকি জানান, আমরা আমাদের ভাই হারিয়েছি। হারিয়েছি একজন অবিভাবক। আমাদের একমাত্র উপার্জনক্ষম ভাইটি আজ দুনিয়ায় নেই। তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করে রকি বলেন, এরকম অসতর্ক হয়ে আর কারো মায়ের বুক যেন না খালি হয়। আর কারো ভাই যেন তার অবিভাবক না হারায় সেজন্য সড়কে গাড়ি চালাতে সতর্কতা অবলম্বন করা জরুরি।

চট্টগ্রাম জেলার বারআওলিয়া হাড়িয়ে থানার এসআই মো. আবুল হাসানাত জানান, আমরা সড়ক দুর্ঘটনায় সংবাদ পাওয়ার সাথে সাথে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখি একজনের মরদেহ পড়ে আছে। পরে স্থানীয়দের সহায়তায় মরদেহ উদ্ধার করে নিহতের স্বজনের নিকট হস্তান্তর করি। আবুল হাসানাত জানান, ধারনা করা হচ্ছে অসতর্কতার কারনে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে।

Please Share This Post in Your Social Media

এ জাতীয় আরো সংবাদ




Shares